অলৌকিকভাবে বেঁচে যাওয়া ও প্রাণ-নেয়ামতের শুকরিয়া

গতকাল বাদ জুমা প্রশ্নোত্তর পর্বে এক ভাই প্রশ্ন করলেন, “হুজুর, আমি কয়েক দিন আগে একটি এক্সিডেন্টে পড়ি। মৃত্যুর সব কারণ থাকা সত্ত্বেও অলৌকিকভাবে আল্লাহ আমাকে বাঁচিয়ে আনেন। এখন আমার কী করা উচিৎ? কোনো এতিমখানা বা মাদ্রাসায় খাওয়ানো উচিৎ? বা অন্য কিছু?”

জবাব আসল, “হ্যাঁ, আল্লাহর সন্তোষজনক পথে ব্যয় করে শুকরিয়া তো আদায় করতেই পারেন, তবে আরেকটি কথা। আল্লাহ যে আপনাকে বাঁচিয়েছেন, এটা আপনার প্রতি তাঁর বিশেষ নেয়ামত। এতক্ষণে আপনি হয়ত কবরে থাকতেন। হয়ত পোকামাকড় আপনার শরীর ক্ষত-বিক্ষত করে দিত। হয়ত বা আযাবের ফেরেশতারা আল্লাহর নির্দেশ বাস্তবায়ন করতেন। কিন্তু আল্লাহ আপনাকে এসব থেকে বাঁচিয়ে প্রাণ বা হায়াতের নেয়ামত দিয়েছেন। নেয়ামতের শুকরিয়া আদায় করা অবশ্য কর্তব্য। আর যে কোনো নেয়ামতের শুকরিয়ার সর্বোত্তম পদ্ধতি হলো, সে নেয়ামতের সর্বোত্তম ব্যবহার। প্রাণের বা হায়াতের সর্বোত্তম ব্যবহার হলো তাকে আল্লাহর নির্দেশিত পথে পরিচালিত করা।

আল্লাহ তায়ালা আপনাকে সুযোগ দিয়েছেন, পরিবর্তনের। সুযোগটি সিংহভাগ মানুষই পান না। কিয়ামতের দিন তাই সকল অপরাধীই পৃথিবীতে পুনরায় ফিরে আসার আকুতি জানাবে। কাজেই সুযোগটিকে পরিবর্তনের সুযোগ হিসেবে বিবেচনা করা উচিৎ। বাকী জীবন ঈমান ও আমলের ওপর কাটিয়ে দেয়া উচিৎ।

(তিনি এর মধ্যে অঝোর ধারায় কাঁদছিলেন। আমরা সবাই আবেগাপ্লুত…)

এতক্ষণ যে কথাগুলো বলা হলো, আসলে এগুলো শুধু এই ভাইয়ের জন্য প্রযোজ্য নয়। আমাদের সবারই একই অবস্থা। বরং এই ভাইকে তো আল্লাহ হায়াত দিয়েছেন, তিনি সুযোগ পেয়েছেন, আমরা তো নাও পেতে পারি। ঘর থেকে বের হয়ে হঠাৎ কোনো দুর্ঘটনায় পড়ে চলে যেতে পারি ওপারে। তখন আমাদের কী অবস্থা হবে?

এ্যাপলের প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জবস, বলা হয় যিনি এ্যাপল না বানালে হয়ত আজকের আধুনিক কম্পিউটার আমাদের হাতে থাকত না, বা এখনকার ট্যাব, টাচ মোবাইল, এগুলো আসত না, তার ব্যাপারে পড়েছি, তিনি প্রতিদিন সকালে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে বলতেন, স্টিভ! আজই তোমার জীবনের শেষ দিন। এরপর বাকী দিনকে শেষ দিন মনে করে তার সর্বোচ্চ ও সর্বোত্তম ব্যবহার করার চেষ্টা করতেন।

তো, তিনি তো মুসলিম ছিলেন না। তিনি শুধু পার্থিব জীবনের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে এ কাজ করতেন। আমরা তো পরকালে বিশ্বাস করি। আমাদের তো আরেকটি জীবন পড়ে আছে। বরং পার্থিব জীবন তো তার তুলনায় কিছুই না। সে জীবনের প্রস্তুতির জন্য পার্থিব জীবন খুব সীমিত সুযোগ। এ সুযোগটার যদি সর্বোচ্চ ও সর্বোত্তম ব্যবহার করতে না পারি, তাহলে এর চেয়ে দুর্ভাগ্য আর কী হতে পারে!

আল্লাহ আমাদের সবাইকে তাঁর মুখোমুখি হওয়ার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণের তাওফীক দিন। আমীন।