আমার ডায়েরি ২০/০৭/২০১০ | রমজান মাস ও ই-দাওয়াহ কর্মসূচি

এখন আরবী শাবান মাস চলছে। রমজান (রামাদান) মাস সন্নিকটে। এ মাসটি ইবাদতের জন্য নির্দিষ্ট করাই ভালো। বিশেষত, কুরআন কারীমের জন্য উৎসর্গ করা সবচেয়ে ভালো। কুরআন কারীম পড়া, শেখা, অনুবাদ পড়া, তাফসীর শোনা, অধ্যয়ন করা – এসবে সময় কাটালেই স্বার্থক। এছাড়া অন্যান্য ইবাদাত তো থাকবেই। নামাজ, রোজা (সালাত, সাওম), জাকাত, সাদকা ইত্যাদি বেশি বেশি আদায় করে বেশি বেশি সওয়াব অর্জনের মাস এটি। দৈনন্দিন কাজকর্মের জন্য সময়ের বরাদ্দ কমিয়ে ইবাদাতের জন্য বেশি সময় বরাদ্দ দিতে হবে।

রমজান মাসে মানুষের অন্তরটা একটু বেশিই আল্লাহমুখী থাকে। যেহেতু রোজাটা আল্লাহর জন্য, এবং এর প্রতিদানটা তিনি নিজেই (তাঁর সন্তুষ্টি, তাঁর নৈকট্য), তাই তাঁর প্রতি অন্তরটা সদা ঝুকে থাকে।  অনেক ইবাদাত করতে মন চায়, ভালো কাজ করতে মন চায়। তাওফীক অনুযায়ী দান-সদকা করতে ইচ্ছে হয়।

এ মাসকে কেন্দ্র করে সমমনা ভাই ও বন্ধুদের নিয়ে কিছু ই-দাওয়াহ কর্মসূচি হাতে নিচ্ছি। দোয়া চাই যেন আল্লাহ তা’য়ালা পূর্ণতা দেন।

১. অনলাইন কওমী মাদ্রাসার যাত্রা রমজান মাসেই শুরু হবে ইনশা’আল্লাহ। পুরো মাস জুড়ে অনলাইনে কুরআন শিক্ষার ক্লাস নেয়ার প্রস্তুতি চলছে। এর বিস্তারিত বিবরণ অল্প কিছুদিনের মধ্যেই জানানো যাবে আশা করছি।

২. জামিয়াতুল আস’আদ আল ইসলামিয়া ঢাকায় শাবানের ২৫ তারিখ থেকে আলেম ও মাদ্রাসার ছাত্রদের জন্য ‘ইংরেজি ও কম্পিউটার কোর্স’ আয়োজন করা হচ্ছে। ইংরেজি কোর্স পরিচালনা করবেন s@ifur’s এর সাবেক শিক্ষক। আর কম্পিউটার কোর্স পরিচালনার দায়িত্ব আমার কাধে পড়েছে।

যারা মাদ্রাসায় পড়েছেন বা পড়ছেন, তারা যেন কম্পিউটার ও ইন্টারনেট প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে নিজেদের জ্ঞানকে আধুনিক বিশ্বের সাথে মিলিয়ে আরো সমৃদ্ধ করতে পারেন, এবং ই-দাওয়ার সাথে নিজেদেরকে সম্পৃক্ত করতে পারেন, সেদিকে লক্ষ্য রেখেই সংক্ষিপ্ত এই কোর্সটি সাজানো হয়েছে।

৩. পলটকের মাধ্যমে ব্যক্তিগতভাবে সংক্ষিপ্ত তাফসীর ও ফিকহী আলোচনা করার নিয়্যত করেছি। প্রতিটা আলোচনার শেষে প্রশ্নোত্তর পর্ব থাকবে ইনশা’আল্লাহ। আল্লাহ তাওফীক দিলে এর বিস্তারিত জানিয়ে শুরু করব ইনশা’আল্লাহ।

৪. ঢাকার বাইরে গিয়ে বিভিন্ন জেলায় ই-দাওয়ার কর্মশালা করার ইচ্ছে ছিল। কিন্তু রোজার মাসে সে সাহস হবে কিনা সন্দেহ। কাজেই আপাতত এটা হবে না বলেই ধরে রাখি।

৫. এছাড়া আগে থেকে চলে আসা অন্যান্য কর্মসূচিগুলো তো থাকছেই। আল্লাহর সাহায্য নিয়ে সেগুলোও আরো বাড়ানো হবে ইনশা’আল্লাহ।

আরেকটা চমক রয়েছে। তবে সেটা শেষ পর্যন্ত না হলে উল্টো চমক হয়ে যাবে। কাজেই সময়মতো সেটা প্রকাশ করার ইচ্ছায় এখন আর তা বললাম না।

এই তো.. দিনগুলো এখন রমজান মাসের প্রস্তুতিতে কাটছে। আশা আর নিরাশার দোলাচলে প্রতি মুহূর্তেই ভাবছি ‘আমরা পারব তো?!’ তবে সাথে সাথে এটাও বিশ্বাস করি, ‘আল্লাহ সাথে থাকলে সবই সম্ভব’। আর السعى منا و الاتمام من الله (আমরা কেবল চেষ্টা করব, পূর্ণতা দিবেন আল্লাহ তায়ালা)। সবার কাছে দোয়া চেয়ে আজকের ডায়েরি শেষ করছি। ভালো থাকুন।